Home / Health tipes / মাংস তো খাবেনই, তবে…

মাংস তো খাবেনই, তবে…

খাবারের তালিকায় অন্য যা কিছু থাক না কেন, মাংস ছাড়া কোরবানির ঈদ যেন শুরুই হয় না। ওজনাধিক্য, হৃদ্রোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও কিডনির রোগীদের গরু ও খাসির মাংস খেতে বারণ করেন চিকিৎসকেরা। তাই বলে মাংস কি শুধুই খারাপ?

মাংস হচ্ছে প্রাণিজ আমিষ, আয়রন, জিংক, থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন, সেলেনিয়াম ও ভিটামিন বি-১২-এর অন্যতম উৎস। সাধারণভাবে একজন মানুষ দিনে ৫০ থেকে ৭০ গ্রাম বা সপ্তাহে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ গ্রাম মাংস খেতে পারবে। কিন্তু রেড মিট বা গরু ও খাসির মাংসে সম্পৃক্ত চর্বি বেশি, তাই অতিভোজনে রক্তের ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গিয়ে উচ্চ রক্তচাপ, হৃদ্রোগ, স্ট্রোক ও ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে। তাই একটু সতর্কতার সঙ্গে ও মাত্রা বুঝে মাংস খাওয়া উচিত।

*মাংস কাটার সময় দৃশ্যমান চর্বি আলাদা করে ফেলে দিন। মাংস পাতলা ও ছোট টুকরা করুন। এতে চর্বি কমে যাবে।

*মাংস রান্না করার সময় বেশি তেল দিয়ে ভুনা না করে অল্প তেলে রান্না করুন। আরও ভালো হয় তেল ছাড়া বেক, গ্রিল, স্টেক ইত্যাদি করে খেতে পারলে।
*উচ্চতাপে দীর্ঘ সময় ধরে মাংস রান্না করলে কিছু ক্ষতিকর রাসায়নিক তৈরি হয়। তাই অল্প তাপে মাংস রান্না করুন।

*মাংস রান্নার আগে সেদ্ধ করে পানি ফেলে নিন। এতে মাংসের চর্বি অনেকটাই কমে আসে।

*রান্না করা মাংস বারবার গরম করবেন না। মাংসের পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়, ক্ষতিকর উপাদান তৈরি হয়।

*কোল্ড ড্রিংকস, ডেজার্টের পরিবর্তে মাঠা, জিরা পানি বা টক দই রাখুন।

*উৎসব-আনন্দে নিয়মিত ওষুধ সেবন যেন বাদ না পড়ে। নিয়মিত হাঁটা বা ব্যায়াম করা বাদ দেবেন না।

About admin

Check Also

ধূমপান ছাড়ার কিছু কার্যকর খাবার

ধূমপান ছেড়ে দিতে চাইলেও অনেকেই নানা কারণে ছাড়তে পারছেন না। ধূমপান বাদ দেওয়ার কয়েক দিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *